1. admin@dailypratidinerbarta.com : admin :
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৮:৪৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

সরকারের ৩ মেয়াদে নওগাঁয় এলজিইডির ৩৭টি উন্নয়ন প্রকল

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ৬ জানুয়ারি, ২০২৩
  • ৭৯ বার পঠিত

নিজস্ব প্রাতিবেদক:-
জেলায় বর্তমান সরকারের সময়ে বিগত কয়েক বছরে কেবলমাত্র স্থানীয় সরকার বিভাগ (এলজিইডি) ১ হাজার ৩১০ কোটি ১ লাখ ৮২ হাজার টাকা ব্যয় করে ৩৭টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এসব প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে সড়ক নির্মাণ ও উন্নয়ন, হাট-বাজার উন্নয়ন, ব্রিজ কার্লভাট নির্মাণ ও সংস্কার, মুক্তিযোদ্ধাদের আবাস নির্মাণ ইত্যাদি।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর নওগাঁ’র নির্বাহী প্রক্যেশলী মো. তোফায়েল আহম্মেদ জানিয়েছেন- এসব প্রকল্পের মধ্যে ২১টি প্রকল্পের কাজ শতভাগ সম্পন্ন হয়েছে এবং ১৬টি প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। চলমান কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে।
সূত্র জানিয়েছে- শতভাগ সম্পন্ন হওয়া প্রকল্প সমূহ হচ্ছে ৮ কোটি ৮৫ লাখ ৯৯ হাজার টাকা ব্যয়ে অধিকার ভিত্তিক গ্রামীণ সড়ক ও হাট-বাজার অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প। ২০০৯ সালে শুরু হয়ে প্রকল্পটি শেষে হয়েছে ২০১৪ সলে।
২০০৮সালে শুরু হয়ে ২০১৬ সালে শেষ হয়েছে পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন (জন গুরুত্বপূর্ণ গ্রামীণ যোগাযোগ এবং হাট-বাজার উন্নয়ন ও পূনর্বাসন) প্রকল্প দ্বিতীয় খন্ড। এই প্রকল্পে মোট বরাদ্দকৃত অর্থের পরিমাণ ২৫ কোটি ৬৯ লাখ ৭৬ হাজার টাকা।
উপজেলা ইউনিয়ন সড়ক, সেতু/কার্লভাট নির্মাণ/ পূণনির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট বরাদ্দকৃত অর্থের পরিমাণ ৩৮ কোটি ১২ লাখ ৪৮ হাজার টাকা। ২০০৯ সালে প্রকল্পটি শুরু হয় এবং শেষ হয়েছে ২০১৬ সালে।
দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের অনগ্রসর উপজেলা সমূহের অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পে মোট বরাদ্দকৃত অর্থের পরিমাণ ১৫৮ কোটি ৫০ লাখ ৯৫ হাজার টাকা। ২০০৯ সালে প্রকল্পের কাজ শুরু হয়ে শেষ হয়েছে ২০১৭ সালে।
২০১০ সালে শুরু হয়ে বৃহত্তর রাজশাহী বিভাগ সমন্বিত পল্লী উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে ২০১৪ সালে। এই প্রকেল্পে মোট অর্থের বরাদ্দ ছিল ৬ কোটি ২৫ লাখ ৮৯ হাজার টাকা।
২০১০ সালে হাতে নেয়া হয় অগ্রাধিকার ভিত্তিক গুরুত্বপূর্ণ পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প। এসব প্রকল্পের কাজ শতভাগ সম্পন্ন হয়েছে ২০১৬ সালে। এসব প্রকল্পে মোট বরাদ্দ দেয়া হয় ১০২ কোটি ৭৩ লাখ ৩৮ হাজার টাকা।
ক্ষুদ্র ও মাঝারি নদীতে রাবার ড্যাম নির্মাণ প্রকল্প হতে নেয়া হয় ২০১০ সালে। এই প্রকল্পটি সম্পন্ন  হয়েছে ২০১৭ সালে। এই প্রকল্পে সরকারি বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ১২ কোটি ৭৫ লাখ ৬১ হাজার টাকা।  
দ্বিতীয় খন্ডে ইউপি কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ প্রকল্পের কাজ শুরু হয় ২০১০ সালে। এই প্রকল্পে সরকারি বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ১২ কোটি ৯৯ লাখ ৩৯ হাজার টাকা। প্রকল্প সমূহ সম্পন্ন হয়েছে ২০২০ সালে।
২০১০ সালে শুরু হয় চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ ভায়া বটতলী জিসি, গাবতলী জিসি সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প। এটি শেষ হয়েছে ২০১৩ সালে। এই প্রকল্পে মোট বরাদ্দ দেয়া হয় ১৫ কোটি ১৬ লাখ ৫৫ হাজার টাকা।
বৃহত্তর বগুড়া, রাজশাহী ও পাবনা জেলা উন্নয়ন প্রকল্পে নওগাঁ অংশে ইউনিয়ন সড়ক ও অন্যান্য অবকাঠামো উন্নয়ন কার্যক্রম শুরু হয় ২০০৮ সালে। এ প্রকল্পে মোট বরাদ্দ দেয়া হয় ২৩ কোটি ৭ লাখ ২৭ হাজার টাকা।
উপজেলা ও রিজিওনাল সার্ভার স্টেশন নির্মাণ পকল্প শুরু হয় ২০১০ সালে। প্রকল্পের কাজ শতভাগ শেষ হয় ২০১১ সালে। এ প্রকল্পে মোট সরকারি বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ২ কোটি ২ লাখ ২০ হাজার টাকা।
এলজিইডি ১৬ কোটি ৫৪ লাখ টাকা ব্যয়ে অংশগ্রহণমূলক ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ সেক্টর প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে। এ প্রকল্পের কাজ শুরু হয় ২০১২ সালে এবং তা সম্পন্ন হয়েছে ২০১৭ সালে।
এই বিভাগের মাধ্যমে ভুমিহীন অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের বাসস্থান নির্মাণ প্রকল্প শুরু হয় ২০১৩ সালে এবং তা একশভাগ শেষ হয়েছে ২০১৭ সালে। এ প্রকল্পে মোট বরাদ্দ দেয়া হয় ৪ কোটি ২৩ লাখ ৫৭ হাজার টাকা।
এ জেলায় উপজেলা সমূহে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ কজ শুরু হয় ২০১৪ সালে। প্রকল্পের কাজ শতভাগ সম্পন্ন হয় ২০২১ সালে । এ প্রকল্পে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ২৪ কোটি ৫ লাখ ৮৫ হাজার টাকা।
২০১৮ সাল হাতে নেয়া হয় মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি স্থাপনা সমূহ সংরক্ষণ ও পুনঃনির্মাণ কাজ। ১ কোটি ৪৭ লাখ ৮৪ হাজার টাকা ব্যয়ে প্রকল্প সমূহ সম্পন্ন হয়েছে ২০২১ সালে।
সাসটেইনেবল রুরাল ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইমপ্রুভমেন্ট প্রকল্প হাতে নেয়া হয় ২০১৩ সালে। প্রকল্পটির ষতভাগ কাজ শেষ হয়েছে ২০১৭ সালে এবং এ প্রকল্পে মোট বরাদ্দ ছিল ১১১ কোটি ৫ লাখ টাকা।
প্রাখমিক শিক্ষা উন্নয়ন প্রকল্পে মোট বরাদ্দ ছিল ৮ কোটি ৫৮ লাখ ৮৫ হাজার টাকা। এসব প্রকল্প ২০১২ সালে শুরু হয়ে শতভাগ সম্পন্ন হয়েছে ২০১৬ সালে।
অগ্রাধিকার ভিত্তিক গুরুত্বপূর্ণ পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প-২ শুরু হয় ২০১৫ সালে। এ প্রকল্পে মোট সরকারি বরাদ্দ ছিল ১২৬ কোটি ৪ লাখ ১৩ হাজার টাকা। প্রকল্প সমূহের শতভাগ কাজ শেষ হয়েছে ২০২১ সালে।
নওগাঁ জেলার পতœীতলা ও ধামইরহাট উপজেলার গ্রামীণ সড়ক উন্নয়ন শীর্ষক প্রকল্প শুরু হয় ২০১৬ সালে। এ’টি শেষ হয়েছে ২০১৯ সালে। এ প্রকল্পের আওতায় সরকারি বরাদ্দ দেয়া হয় ২২ কোটি ১৫ লাখ ১৬ হাজার টাকা।
জেলার উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়কে দীর্ঘ সেতু নির্মাণ কাজ শুরু হয় ২০১০ সালে। ২০২১ সালে সম্পন্ন হয় এ প্রকল্প। এসব কাজে মোট বরাদ্দ ছিল ১৭ কোটি ৬২ লাখ টাকা।
সরকার ২০১৭ সালে হাতে নেয় সার্বজনীন সামাজিক অবকাঠামো উন্নয়ন কাজ। এসব উন্নয়ন কাজে মোট বরাদ্দ ছিল ১২ কোটি ৯৭ লাখ ২০ হাজার টাকা। এসব প্রকল্পের শতভাগ কাজ শেষ হয়েছে ২০২১ সালে।
অপরদিকে এলজিইডির গৃহিত মোট ১৬টি প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। প্রকল্পসমূহ হচ্ছে- বৃহত্তর রাজশাহী জেলার গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন শীর্ষক প্রকল্পের কাজ। এসব কাজের জন্য সরকারি ব্যয় ধরা হয়েছে ১৯৬ কোটি ৫৭ লাখ ৬৯ হাজার টাকা। এই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে ২০১৫ সালে। কাজের অগ্রগতি ৯৮ শতাংশ।
অগ্রাধিকার ভিত্তিক গুরুত্বপূর্ন পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প-৩ এর কাজ শুরু হয়েছে ২০২১ সালে। এই প্রকল্পে মোট বরাদ্দ ধরা হয়েছে ৭৬ কোটি ২০ লাখ ১২ হাজার টাকা। কাজের অগ্রগতি ৪৪ শতাংশ।  
পল্লী সড়কে গুরুত্বপূর্ন সেতু নির্মান প্রকল্প শুরু হয়েছে ২০১৭ সালে। এ প্রকল্পে মোট বরাদ্দ ধরা হয়েছে ১৪২ কোটি ৯৫ লাখ ৭৩ হাজার টাকা। প্রকল্পের কাজের অগ্রগতি ৫১ ভাগ।
দেশব্যাপী গ্রামীণ বাজার অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় নওগাঁ জেলায় কাজ শুরু হয়েছে ২০১৭ সালে। এসব কাজের জন্য সরকারি বরাদ্দ ধরা হয়েছে ১৬ কোটি ৭৫ লাখ ৫১ হাজার টাকা। এসব কাজের অগ্রগতি ৪৬ শতাংশ।
রাজশাহী বিভাগ (সিরাজগঞ্জ জোন ব্যতিত) পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে ২০১৭ সালে। নওগাঁ অংশে মোট বরাদ্দ ধরা হয়েছে ৩৫৫ কোটি ৬৮ লাখ ৮ হাজার টাকা। কাজের অগ্রগতি ৪০ ভাগ।
বন্যা ও দূর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পল্লী সড়ক অবকাঠামো পুনর্বাসন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে ২০১৮ সালে। এ প্রকল্পে মোট বরাদ্দ নির্ধারণ করা হয়েছে ২০ কোটি ১১ লাখ ৯০ হাজার টাকা। একাজের অগ্রগতি ৯১ শতাংশ।
গ্রাম সড়ক পুণর্বাসন প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে ২০১৮ সালে। এ প্রকল্পে মোট বরাদ্দের পরিমাণ ৩৬ কোটি ৮২ লাখ ২৪ হাজার টাকা। এ প্রকল্পের কাজ ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে ৮৯ ভাগ।
উপেজলা, ইউনিয়ন ও গ্রাম সড়কে অনুর্দ ১০০ মিটার সেতু নির্মাণ প্রকল্প শুরু হয় ২০১৯ সালে এবং এ প্রকল্পে মোট বরাদ্দ দেয়া হয় ১৫ কোটি ৮৫ লাখ ৬০ হগাজার টাকা। কাজের অগ্রগতি ২০ ভাগ।
ঘূর্ণিঝড় আম্ফান ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পল্লী অবকাঠামো পুণর্বাসন প্রকল্পে মোট বরাদ্দ ধরা হয়েছে ১৯ কোটি ২৭ লাখ ৪৩ হাজার টাকা। এ পর্যন্ত কাজের অগ্রগতি ২০ ভাগ।
রুরাল কানেকটিভিটি ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্ট শুরু হয়েছে ২০১৮ সালে। এ প্রকল্পে মোট বরাদ্দ ধরা হয়েছে ৮৩ কোটি ৬৭ লাখ ৩৪ হাজার টাকা। এ পর্যন্ত কাজের অগ্রগতি ৭০ শতাংশ।
২০১৮ সালে শুরু হয়েছে প্রোগ্রাম ফর সাপোটিং রুরাল ব্রিজেস। এ ক্ষেত্রে মোট বরাদ্দ ধরা হয়ছে ১৭ কোটি ৫২ লাখ ৪১ হাজার টাকা। কাজের অগ্রগতি ৩০ ভাগ।
২০১৮ সালে শুরু হয়েছে উপজেলা শহর (নন-মিউনিসিপ্যাল) মাস্টার প্ল্যান প্রনয়ণ ও মৌলিক অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প। এ প্রকল্পে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১৩ কোটি ৫৯ লাখ ৮৮ হাজার টাকা।
টেকসই ক্ষুদ্রকার পানি সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে ২০১৭ সাল। এ কাজে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১ কোটি টাকা। এ প্রকল্পে কাজের অগ্রগতি ৯০ শতাংশ।
সমগ্র দেশে শহর ও ইউনিয়ন ভূমি অফিস নির্মাণ প্রকল্প হাতে নেয়া হয় ২০১৬ সালে। এই প্রকল্পে জেলায় মোট বরাদ্দ ধরা হয়েছে ১৪ কোটি ৮০ লাখ ৯২হাজার টাকা। এ কাজের বর্তমান অগ্রগতি ৯২ শতাংশ।
উপজেলা কমপ্লেক্স ভবন ভবন সম্প্রসারণ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে ২০১২ সালে। এ জেলায় সংশ্লিষ্ট কাজে মোট বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৪৯ কোটি ৮১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। এ পর্যন্ত কাজের অগ্রগতি ৯৮ ভাগ।
প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে ২০১৭ সালে যা চলমান রয়েছে। এ প্রকল্পে মোট বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ২৪৯ কোটি ৩৫ লাখ ২৬ হাজার টাকা। এখন পর্যন্ত ৯২ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে।
এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী জানিয়েছেন- বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কাজের ধারাবাহিকতায় এসব কাজ সম্পন্ন হওয়ার ফলে এ জেলার শিক্ষা, যোগাযোগসহ ব্যাপক সামাজিক উন্নয়ণ সাধিত হয়েছে যার ফলে সর্বস্তরের মানুষেরা সুফল পেতে শুরু করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২২ © দৈনিক প্রতিদিনের বার্তা ©
Theme Customized By Shakil IT Park