1. admin@dailypratidinerbarta.com : admin :
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৬:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

বিশ্বকাপে খেলার স্বপ্ন বাংলাদেশের

  • আপডেট সময় : শনিবার, ১৪ জানুয়ারি, ২০২৩
  • ১০২ বার পঠিত

ডেস্ক রিপোর্ট:-
ওমানের মাঠে বাংলাদেশ উৎসব করেছে। হওয়ারই কথা। ২০১৪ সালের পর যে আবার অনূর্ধ্ব-২১ হকির ট্রফি জেতা গেছে। ফাইনালে স্বাগতিকদের সঙ্গে নির্ধারিত সময়ের খেলা ১-১ গোলে অমীমাংসিত ছিল। তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতার পর টাইব্রেকারেই ওমানকে ৭-৬ গোলে হারিয়ে বাংলাদেশ শিরোপা উঁচিয়ে ধরেছে। জয়ের পর তো মাঠেই আনন্দ-উচ্ছ্বাসে মেতেছে লাল-সবুজ দলের প্রতিনিধিরা। যার রেশ নিয়ে আজ দুপুরে ঢাকায় ফিরেছে হকির বয়সভিত্তিক দল।

ওমানে সেরা হওয়ায় আগামী মে মাসে জুনিয়র হকির মূল পর্বে খেলার দুয়ারও উন্মোচিত হয়েছে। মূল পর্বও হবে মাস্কটেই। বাছাই পর্বে লাল-সবুজ দলের কোচের দায়িত্বে ছিলেন মামুনুর রশীদ। মামুনের আবার ‘ডাবল অর্জন’ হয়েছে। ২০১৪ সালে অনূর্ধ্ব-২১ হকির প্রথম শিরোপা এসেছিল তার হাত ধরে। ৯ বছর পর আবারও দায়িত্ব পেয়ে শিরোপা এনে দিয়েছেন হকির অভিজ্ঞ এই ব্যক্তিত্ব। তবে এখানেই থেমে থাকতে চাইছেন না সাবেক তারকা ডিফেন্ডার। চোখ রেখেছেন মূল পর্বে। যেখানে তার স্বপ্নটা আরও বড়। মূল পর্বে এশিয়ার শীর্ষ দল জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, চীন, পাকিস্তান ও ভারতের মতো দল খেলবে। তাদের সঙ্গে যোগ দেবে বাছাই পর্ব পেরিয়ে আসা বাংলাদেশ, ওমান, থাইল্যান্ড ও উজবেকিস্তানসহ আরও একটি দেশ। মূল পর্বের শীর্ষ চার দল খেলবে ২০২৪ জুনিয়র বিশ্বকাপে।

ওমানের বাছাই পর্বে চ্যাম্পিয়ন হয়ে মামুনের এখন উপলব্ধি এই দল নিয়ে বহু দূর এগোনো সম্ভব। কুয়াশার কারণে বাংলাদেশ দলটি নির্ধারিত সময়ে ঢাকায় নামতে পারেনি, সিলেট অবতরণ করেছে। এরপর আকাশ পরিষ্কার হলে দুই ঘণ্টা পর ফিরেছে ঢাকায়। রাজধানীতে ফিরেই ফেডারেশন সভাপতি বিমান বাহিনীর প্রধান এয়ার মার্শাল শেখ আব্দুল হান্নান ফুলেল শুভেচ্ছায় সবাইকে সিক্ত করেছেন।

ফাইনাল জিতেই মামুনের চিন্তার জগতে এখন অন্য কিছু খেলা করছে। ঢাকায় ফিরে বাংলা ট্রিবিউনের কাছে বলেছেন, ‘আসলে আমি এখানে থেমে থাকতে চাই না। আমরা বাছাইতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছি। ওমানের মতো শক্তিশালী দলকে হারিয়েছি। মে মাসে মূল পর্ব। ওখানে জাপান, কোরিয়া ও চীনকে হারানো সম্ভব বলে আমার কাছে মনে হয়। ওরা বয়সভিত্তিক পর্যায়ে আমাদের মতো অনেকটা সমমানের। তাই ওদের হারিয়েই জুনিয়র বিশ্বকাপে জায়গা করে নিতে চাই।’

জুনিয়র বিশ্বকাপ হবে ২০২৪ সালে। সেখানে মূল পর্ব থেকে শীর্ষ চার দল যাবে। মামুন মনে করছেন, স্বপ্নটা বড় মনে হলেও তা সার্থক করা সম্ভব, ‘দেখুন আমরা যদি এখনই দীর্ঘমেয়াদে প্রস্তুতি নিতে পারি তাহলে ওমানের মূল পর্বে বড় দলগুলোকে হারানো কঠিন কিছু হবে না। শুধু আমাদের নির্দিষ্ট পরিকল্পনা করে এগোনো প্রয়োজন। বাছাইতে জিতে এখন বসে থাকলে হবে না। আমার মনে হয় এই সুযোগটা নেওয়া উচিত। বিশ্বকাপে খেলার পরিকল্পনা করে মাঠে নামতে হবে।’

মূল পর্ব ও বিশ্বকাপ নিয়ে আলাপের ফাঁকে মামুনের সঙ্গে আগের রাতের ফাইনাল নিয়েও কথা হয়েছে। কোচ জানিয়েছেন, ‘শুরুতে আমরা রক্ষণ সামলে খেলেছি। কিন্তু তাতে সুবিধা হচ্ছিল না। গোল হজম করে ফেলি। তারপর আক্রমণাত্মক ছকে খেলে সাফল্য এসেছে। আমরা অন্তত নির্ধারিত সময়ে তিন গোলে জিততে পারতাম। ওরা একটি গোল ছাড়া সেভাবে আমাদের ওপর চড়াও হতে পারেনি। টাইব্রেকারে ছেলেরা সফল হয়েছে। ওদের কারণেই শিরোপা এসেছে।’

এয়ারপোর্টে কোচ ও খেলোয়াড়দের ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে সংবাদ মাধ্যমকে ফেডারেশনের সভাপতি বিমান বাহিনীর প্রধান এয়ার মার্শাল শেখ আব্দুল হান্নানও জানালেন তাদের নানা প্রস্তুতির কথা, ‘‘এদের কোচিংয়ের জন্য বিদেশ থেকে কোচ আনতে সেই রকম পরিকল্পনাও চলছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে যথেষ্ট উৎসাহ দিয়ে আসছেন। দেখা হলেই বলেন, ‘তোমার খেলাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে, তরুণ সমাজকে খেলার দিকে উৎসাহিত করতে হবে।’ উনি খেলার উন্নয়নে যা যা দরকার তা দেবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। ইনশাল্লাহ উনার সাহায্যে দলকে বিশ্বকাপে নিয়ে যেতে পারবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২২ © দৈনিক প্রতিদিনের বার্তা ©
Theme Customized By Shakil IT Park