1. admin@dailypratidinerbarta.com : admin :
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৩:৫৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বিশ্বের মসজিদের ইতিহাসে জায়গা করে নিয়েছে টাঙ্গাইলের ২০১ গুম্বজ মসজিদ মধুপুরে মসলা জাতীয় ফসলের মাঠ দিবস পালিত মুন্সীগঞ্জে আলোচিত জিল্লু হত্যার তিন আসামি পলাতক। ফতেহপুর শাহ ফতেহ মাহমুদ খান ফাযিল মাদ্রাসা’র পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত রংপুর জেলার শ্রেষ্ঠ এস, আই ও শ্রেষ্ঠ বিট অফিসার পীরগাছা থানার ফারুক আহমেদ ও এ, এস, আই রশিদুল ইসলাম- দেশের প্রভাবশালী ব‍্যক্তিদের তালিকায় এক নম্বরে প্রধানমন্ত্রী মোদি লৌহজং কলমার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নবীনবরণ ও সংবর্ধনা কাহালু উপজেলা কমিটি কর্তৃক জাতীয় মানবাধিকার অ্যাসোসিয়েশনের ২৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত মহিলাকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগ, গ্রেফতার যুবক  পীরগাছায় ৭বছরের শিশু কে দলবদ্ধ বলৎকার

সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানোর আগে যা বলেছিলেন ইউটিউবার

  • আপডেট সময় : বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩
  • ৫৪ বার পঠিত

অনলাইন ডেস্ক:-
অমিত মণ্ডল, বিশেষভাবে সক্ষম একজন ইউটিউবার এবং সোশ্যাল মিডিয়া ইনফ্লুয়েন্সার। বুধবার পশ্চিমবঙ্গের ফ্রেজারগঞ্জে একটি মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনার মুখে পড়ে প্রাণ হারান। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের।

মঙ্গলবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ২২ বছর বয়সী এই যুবক তার দুই বন্ধুর সঙ্গে একটি স্কুটিতে চড়ে যাওয়ার সময় দুর্ঘটনাটি ঘটে। গুরুতর জখম অবস্থায় অমিতকে কাছের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। গভীর রাতে অবস্থার আরও অবনতি হলে নিয়ে আসা হয় কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালে।

তবে ডাক্তারদের সব রকম প্রচেষ্টা সত্ত্বেও বাঁচানো গেল না এই ইউটিউবারকে। বুধবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) সকালে মারা যান তিনি। অমিতের মর্মান্তিক মৃত্যুতে গভীরভাবে শোকাহত তার হাজার হাজার অনুরাগী।

মারা যাওয়ার আগে ইউটিউবে যে শেষ ভ্লগ পোস্ট করেছিলেন অমিত তাতে দেখা গিয়েছিল তিনি বন্ধুদের নিয়ে এসেছেন আলিপুর জেল মিউজিয়ামে। কারাগারে নিজেকে লেন্সবন্দি করে তাকে বলতে শোনা গিয়েছিল, ‘আমার ফাঁসি হবে! এখন কারাগারে বন্দি।’

নিজেকে কখনোই বিশেষভাবে সক্ষম ভাবতেন না তিনি। কখনও চাননি এটা তার পরিচয় হোক। ইউটিউবে অমিতের সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা চমকে দেওয়ার মতো বটে। ৩ লাখ ৯০ হাজার মানুষ ফলো করতেন অমিতকে। রোজনামচা থেকে জীবনের বিশেষ বিশেষ মুহূর্ত, সবটাই ভাগ করে নিতেন সকলের সঙ্গে।

নিম্নবিত্ত পরিবারেই বেড়ে ওঠা। অমিতের বাবা-মা স্থানীয় পৌরসভায় চুক্তিভিত্তিক কর্মী। তবে নানা আর্থিক জটিলতা সত্ত্বেও ছেলের স্বপ্নপূরণে সাহায্য করেছেন সব সময়। অমিতের এভাবে চলে যাওয়ায় ভেঙে পড়েছে তার পরিবার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২২ © দৈনিক প্রতিদিনের বার্তা ©
Theme Customized By Shakil IT Park