1. admin@dailypratidinerbarta.com : admin :
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১২:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

রামগঞ্জে মার্কেটের নাম পরিবর্তন করে লাগানো সাইনবোর্ডটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের নির্দেশে অপসারণ

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ, ২০২৪
  • ৬২ বার পঠিত

মোঃ আরিফ হোসেন, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধিঃ-

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে জেলা পরিষদের মালিকানাধীন ঐতিহ্যবাহী জিয়া শপিং কমপ্লেক্সের নাম পরিবর্তন করে রাতের আঁধারে রামগঞ্জ শপিং কমপ্লেক্স নামে একটি সাইনবোর্ড লাগানোর ঘটনায় উপজেলা জুড়ে ব্যাপক তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে।
এ বিষয়ে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আওয়ামীলীগ এবং বিএপির বিভিন্ন নেতাকর্মীসহ অসংখ্য মানুষকে পোস্ট দিতে দেখা গেছে।
তবে মার্কেটের নাম পরিবর্তন করে সাইবোর্ড লাগানোর বিষয়ে কিছুই জানেনা বলে জানান জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ শাহজাহান। বিষয়টি ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে জানতে পেরে তাৎক্ষনিক সাইবোর্ডটি খুলে ফেলার নির্দেশ দেন তিনি।

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ শাহজাহানের ছেলে ইমতিয়াজ আরাফাত প্রার্থী হওয়ায় তাকে বিতর্কিত করতে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েএকটি মহল এ কাজ করেছে বলে ইমতিয়াজ আরাফাতের কয়েকজন অনুসারী জানান।

সূত্রে জানা যায়, তৎকালীন মরহুম জিয়াউল হক জিয়া এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী থাকাকালীন রামগঞ্জ জিয়া শপিং কমপ্লেক্স নামে এ মার্কেটটি প্রতিষ্ঠা করেন। কিন্তু প্রতিষ্ঠার পর থেকে এ নামে দীর্ঘ ১৭ বছর মার্কেটটি পরিচালিত হয়ে আসলেও মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) ভোর রাতে কে বা কাহারা ডাকবাংলা মসজিদ সংলগ্ন গেটে রামগঞ্জ জিয়া শপিং কমপ্লেক্স নামে সাইনবোর্ডটি সরিয়ে রামগঞ্জ শপিং কমপ্লেক্স নামে একটি সাইনবোর্ড স্থাপন করে। এসময় সকালে মার্কেটের ব্যবসায়ীরা ও বাজারের অন্য ব্যবসায়ীরা এমন কর্মকান্ড দেখে হতবাক হয়ে যান। পরবর্তীতে দুপুরের পর থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নতুন সাইনবোর্ডটির একটি ছবি ছড়িয়ে পড়লে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় উঠে।

এসময় বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্য ড. আনোয়ার হোসেন খান ও লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ শাহজাহানের নজরে আসলে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের নির্দেশে রাতেই বিতর্কিত সাইনবোর্ডটি সরিয়ে ফেলা হয়।

স্থানীয় ৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মেহেদী হাসান শুভ বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা। ফেসবুকে মার্কেটের নাম পরিবর্তনের সাইনবোর্ডটি দেখে তাৎক্ষণিক জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ শাহজাহান ও এমপি ড. আনোয়ার হোসেন খান মহোদয়কে অবিহিত করলে ওনারা দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহন করেন এবং বিতর্কিত সাইনবোর্ডটি দ্রুত অপসারণ করা হয়।

রামগঞ্জ পৌর মেয়র আলহাজ্ব আবুল খায়ের পাটোয়ারী বলেন, অনেকে প্রচার করছেন মার্কেটের নাম পরিবর্তনের সাথে আমি নাকি জড়িত। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং অপপ্রচারের কৌশল মাত্র। এটার সাথে পৌরসভার কোন সম্পৃক্ততা নাই। আমার পরিষ্কার বক্তব্য হচ্ছে এ বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা এবং এটা আমার এখতিয়ার নয়।

লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ শাহজাহান জানান, রামগঞ্জ জিয়া শপিং কমপ্লেক্সের নাম পরিবর্তনের বিষয়টি তৎকালীন জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জনাব শামসুল ইসলাম সাহেবের সময় পরিষদের রেজুলেশন এর মাধ্যমে সিদ্ধান্তটি গৃহীত হয়।
জিয়া শপিং কমপ্লেক্সের সাইনবোর্ড টি কে বা কারা পরিবর্তন করেছে তা লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদ অবগত নয়। কিছু অতি উৎসাহি ব্যক্তি বা মহল পরিষদের সুনাম নষ্ট করার উদ্দেশ্য এ কাজটি করেছে। বিষয়টি আমি অবগত হওয়ার পর রামগঞ্জের মাননীয় সংসদ সদস্য মহোদয় ও ইউ এন ও মহোদয় এর সাথে আলোচনা করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২২ © দৈনিক প্রতিদিনের বার্তা ©
Theme Customized By Shakil IT Park