1. admin@dailypratidinerbarta.com : admin :
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১২:২৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

রংপুরের পীরগাছায় শতাধিক সরকারি গাছ হরিলুট

  • আপডেট সময় : রবিবার, ২৮ মে, ২০২৩
  • ৬০৪ বার পঠিত

রাজীব মুন্সী, পীরগাছা রংপুর প্রতিনিধিঃ-

পরিবেশ রক্ষায় প্রত্যক্ষভাবে গাছের ভূমিকা অপরিসীম আমাদের প্রতিনিয়ত বিভিন্ন প্রকৃতিক বিপর্যয়ের হাত রক্ষা করে গাছ কিন্তু আমারা কত খানি রক্ষা করি তাকে, উল্টো বিভিন্ন ভাবে গাছ কেটে প্রতিনিয়ত পরিবেশেকে ধ্বংস করছি আমরা, যার ফলে সৃষ্টি হচ্ছে বিভিন্ন প্রাকৃতিক দূর্যোগ। পীরগাছায় এবারের কাল বৈশাখী ঝড়ের কবলে উপরে পড়ে হাজার হাজার গাছপালা, যার ফলে নষ্ট হয় শতশত একর জমির ফসল, শতাধিক কাচা ঘরবাড়ি দোকানপাট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয় পীরগাছার বিভিন্ন সড়কের পাশে থাকা সরকারি গাছ, ঝড়ের তান্ডবে উপরে পড়ে যায় জেলা পরিষদ ,ইউনিয়ন পরিষদ, ও সরকারি বনায়ন প্রকল্পের আওতায় পীরগাছার বিভিন্ন সড়কের পাশে থাকা দুই ধারের শতাধিক গাছ। উপড়ে পড়ে যায় , ডাল ভেঙ্গে যায়, যার বর্তমান বাজার মূল্য কোটি টাকা প্রায়। প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের উদাসিনতার ফলে ঝড়ে উপড়ে পড়া শতাধিক গাছপালা নিজেদের দখলে নিয়ে বিক্রি করে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি, যার সাথে জড়িত বন বিভাগের কর্মী ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য রাজনৈতিক নেতাসহ অনেকেই, উল্লেখ যে সব থেকে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ ও গাছপালা উপরে পড়ে পাওটানা হইতে বড়দরগা তাম্বুলপুর ছাওলা অন্নদনগর ইউনিয়নের সড়কের এই সড়কের গাছ গুলো জেলা পরিষদের ও ইউনিয়ন পরিষদের লাগানো যা অনেক পুরনো গাছ, আর এই গাছ গুলোর বর্তমান বাজার মূল্য অনেক বেশি। আর এই গাছ গুলো বেশীভাগেই ঝড়ের পড়ের দিন এ হরিলুট ও চুরি হয়। জেলা পরিষদের ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের অসহযোগিতার কারনে সরকার হারায় লক্ষ লক্ষ টাকার রাজস্ব । সরকারি বনায়ন প্রকল্পের অধিনে ছাওলা ও তাম্বুলপুর বাঁধের উপরে লাগানো দুই শতাধিক গাছ উপড়ে পড়ে যা সঠিক সময়ে সংরক্ষণ না করার ফলে অনেকেই সদস্যদের নাম করে চুরি করে গাছ আর গাছ চুরিতে জড়িত ছিল কিছু অসাধু সদস্য যারা অনেকেই গাছ হরিলুট করে,পীরগাছা বন বিভাগের কর্মকতা নুর- নবী জানান আমাদের জনবল সংকট থাকার কারনে সঠিক সময়ে অনেক গাছ সংরক্ষণ করা যায় নি যার ফলে অনেক গাছ চুরি হয়েছে। পীরগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুল হক সুমন বলেন আমরা ঝড়ে উপড়ে পড়া গাছের প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলেছি, তারা গাছ গুলো কে স্ব স্ব ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান দের সাথে কথা বলে তাদের সহযোগিতায় গাছ গুলো সংরক্ষণ করার ব্যবস্থা করছে।যা পড়ে সরকারি দরপত্রের মাধ্যমে বিক্রি করা হবে। সরকারী গাছ হরিলুট ও চুরি হওয়ার বিষয়টি তার কাছে জানতে চাওয়া হলে তার জানা নেই বলে আমাদের জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা পরিষদের সদস্য আব্দুল হান্নান। ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানগন বলে সঠিক সময়ে আমাদের না জানার কারনে আমরা অনেক গাছ সংরক্ষণ করতে পাড়ি নি তবে অনেক গাছ আমরা সংরক্ষণ করতে পাড়ছি এ সব কথা আমাদের কে জানান ইটাকুমারী চেয়ারম্যান আবুল বাশার। সঠিক সময়ে যদি এ সব গাছ সংরক্ষণ করা যেত তাহলে সরকারের লক্ষ লক্ষ টাকা রাজস্ব জমা হতো। তাই সাধারণ জনগন আসা করে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের উদাসিনতায় আর যেন এ ধরনের ক্ষতি না হয় সরকারের। গাছ থেকে পাওয়া অক্সিজেন নিয়ে আমরা বেঁচে আছি তাই আসুন আমরা সকলে গাছ লাগিয়ে পরিবেশ কে রক্ষা করি ।আর আসা করি যারা গাছ চুরি করে রাষ্ট্রের ক্ষতি করে তাদের বিরোধে ব্যবস্থা নিবেন সরকার ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২২ © দৈনিক প্রতিদিনের বার্তা ©
Theme Customized By Shakil IT Park